বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১
Logo
অভয়নগরে তৃতীয় লিঙ্গ আলমগীর হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

অভয়নগরে তৃতীয় লিঙ্গ আলমগীর হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন

আদালতে সাগর মোল্যার জবানবন্দী

নওয়াপাড়ায় তৃতীয় লিঙ্গের আলমগীর হাওলাদার হত্যা মামলায় আটক সাগর মোল্লা হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।


এ হত্যাকান্ডে ইয়াসিন ও আবুল কালাম নামে আরও দুইজন জড়িত থাকার কথা আদালতে স্বীকার করেছেন বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছেন। আটক সাগর মোল্লা নওয়াপাড়া পাঁচকবর এলাকার স্বপন মোল্লার ছেলে। তারা চারজন ইয়াবা সেবন এবং আলমগীরের সাথে অনৈতিক সম্পর্ক করে। এরপর তারা আলমগীরকে হত্যা করে লাশ বাগানের মধ্যে গাছে ঝুঁলিয়ে রেখেছিল।


এ হত্যাকান্ডের সাথে আরও দুইজন জড়িত বলে জানিয়েছে সাগর মোল্লা। সোমবার এ জবানবন্দি গ্রহণ শেষে জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মাহাদী হাসান আসামিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।


সাগর মোল্লা জানিয়েছে, আলমগীর হাওলাদার পেশায় একজন রঙ মিস্ত্রী ও হিজড়া। গত ২ মার্চ রাতে দুই সহযোগী তার ফোন দিয়ে আলমগীকে ইয়াবা নিয়ে কবিরাজের বাগানে আসতে বলে। আলমগীর ইয়াবা নিয়ে আসলে তারা এক সাথে সেবন করে।


এরপর ওই দুই জন আলমগীরের সাথে শারিরীক সম্পর্ক করে। বিসয়টি আলমগীর জানিয়ে দিবে বলে তাদেও হুমকি দেয়। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তারা আলমগীরকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ গাছে ঝুলিয়ে রাখে বলে জবনবন্দিতে জানিয়েছে সাগর।


মামলার অভিযোগে জানা গেছে, গত ২ মার্চ সন্ধ্যায় আলমগীর রঙ কেনার উদ্যেশে বাজারে যায়। রাতে আলমগীর বাড়ি না ফেরায় খোঁজাখুজি করে উদ্ধারে ব্যর্থ হয় স্বজনেরা।


পরদিন সকালে স্থানীয়দের সংবাদের ভিত্তিতে কবিরাজের বাগানের একটি গাছ থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় আলমগীরের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ব্যাপারে নিহতের মা আমেনা বেগম বাদী হয়ে অপরিচিত ব্যক্তিদের আসামি করে অভয়নগর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন।


মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিহত আলমগীরের মোবাইল ফোনের কললিস্ট দেখে সন্দেহজনক ভাবে সাগর মোল্লাকে আটক করেন। সোমবার তাকে আদালতে সোপর্দ করা হলে হত্যার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে ওই জবানবন্দি দিয়েছেন।

সংযুক্ত থাকুন