মঙ্গলবার, ১১ মে ২০২১
Logo
অভয়নগরে ৮ হাজার বয়স্ক ভাতা ভোগী প্রায় ১ বছর ভাতা পাচ্ছেন না

অভয়নগরে ৮ হাজার বয়স্ক ভাতা ভোগী প্রায় ১ বছর ভাতা পাচ্ছেন না

করোনার ঝুঁকি মাথায় নিয়ে রোজ আসছেন ব্যাংক ও সমাজ সেবা অফিসে ,ঈদুল ফিতরের আগেই বকেয়া ভাতা এক সঙ্গে পাবে - বললেন সমাজ সেবা কর্মকর্তা

বাবা, দীর্ঘ প্রায় এক বছর বয়স্ক ভাতা পাইনে। নিজে আয় করতে পারিনে। অনেক কষ্টে বেঁচে আছি। এক পায়ে ব্যথা, বয়সের ভারে হাঁটতে পারিনে, তারপরও খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে একবার ব্যাংকে আরেকবার এই অফিসে (অভয়নগর উপজেলা সমাজসেবা অফিস) ভাতার খোঁজ নিতে আসি।


আমি ৩-৪ বছর বয়স্ক ভাতা পাই কিন্তু হঠাৎ বন্ধ হয়ে গেছে আমার ভাতার টাকা” এভাবে বলে চলেছেন আছিয়া বেগম নামে এক বয়স্ক মহিলা, তার স্বামীর নাম মৃত ইউনুছ আলী।


তিনি অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া পৌরসভার বস্তিতে বসবাস করেন। রবিবার অভয়নগর উপজেলা সমাজ সেবা অফিসের সামনে এভাবে দেখা হয় পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের মহাজের পাড়ার মৃত মাজিদ খান এর স্ত্রী তহমিনা বেগম, ৬নং ওয়ার্ডের গুয়াখোলা গ্রামের সুরন চন্দ্র এর স্ত্রী উষা রানী, শ্রীধরপুর ইউনিয়নের দীঘিরপাড় গ্রামের আবু বকর শেখের স্ত্রী সকিনা, সিদ্দিপাশা ইউনিয়নের মৃত শহিদুল সরদারের স্ত্রী শেফালী বেগম সহ ৮/১০ জন বয়স্ক ব্যক্তির সাথে।


তারা সবাই বয়স্ক ভাতার খোঁজ নিতে অভয়নগর উপজেলা সমাজসেবা অফিসে এসেছেন। আবার দুই/একজন বয়স্ক ব্যক্তি ইউএনও স্যারের কাছে খোঁজ নিতে যেতে চেষ্টা করছেন কিন্তু দারোয়ান তাদের অনুমতি দিচ্ছেন না। ভাতা কেন পাচ্ছেন না, কবে পাবেন কেউ বলতে পারেন না। তবে তারা শুধু বুঝেছেন টাকা মাইর যাবে না। অপরদিকে মণিরামপুর উপজেলার কুলটিয়া ইউনিয়নের হাটগাছা গ্রামের সবিতা বিশ্বাস (৭০) জানায় তারা নিয়মিত ভাতার টাকা পাচ্ছেন।


অভয়নগর উপজেলা সমাজ সেবা অফিস সূত্রে জানা যায়, অভয়নগর উপজেলায় ৮ হাজার ১শ’ ৬০জন বয়স্ক, ৩ হাজার ১শ’ ৭৬জন বিধবা ভাতা, ৩ হাজার ১শ’ ৬৪জন প্রতিবন্ধী ভাতা ভোগী রয়েছে। সবচেয়ে বেশি রয়েছে বয়স্করা, কিন্তু তারা গত (জুলাই ২০২০ তারিখ হতে আজ পর্যন্ত) ৯ মাস বয়স্ক ভাতা পায়না।

 

এছাড়া কিছু বিধবা ও প্রতিবন্ধী রয়েছে তাদের অন-লাইনে সমস্যার কারণে তারাও ভাতা পায়না। মণিরামপুর উপজেলা সমাজ সেবা অফিস সুত্রে জানা যায়, ১৫ হাজার ১শ’ ৩৩ জন বয়স্ক, ৭ হাজার ৩শ’ ৭৮জন বিধবা ও ৬ হাজার ১শ’ ৮৯জন প্রতিবন্ধী ভাতা ভোগী রয়েছে।

 

এ উপজেলায় নিয়মিত ভাতা প্রদান করা হচ্ছে। এব্যাপারে অভয়নগর উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা নির্মল কান্তি কর্মকার বলেন, ভাতার টাকা চলে এসেছে, খুব তাড়া তাড়ি বিতরণ করা শুরু হবে। ঈদুল ফিতরের আগেই বকেয়া ভাতা একসঙ্গে দেওয়া যাবে বলে আশা করা যায়।


তিনি আরও বলেন, ডিজিটালাইজেশন প্রক্রিয়ার কারণে বয়স্ক ভাতার টাকা আটকে ছিল। ইতিমধ্যে ভাতাভোগীদের ডিজিটাল অ্যাকাউন্ট তৈরির কাজ শেষ হয়েছে। এখন থেকে ভাতা ভোগীদের আর ব্যাংকে যেয়ে ভীড় করতে হবেনা। শহর, গ্রামসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলের এশিয়া ব্যাংকের শাখাসহ বিভিন্নভাবে তারা ভাতার টাকা উত্তোলন করতে পারবে।


এব্যাপারে মণিরামপুর উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ রোকনুজ্জামান বলেন, এ উপজেলায় কোন সমস্যা নেই। বয়স্ক, বিধবা ও প্রতিবন্ধী ভাতা ভোগীরা নিয়মিত ভাতা পাচ্ছেন। এব্যাপারে যশোর জেলা সমাজ সেবা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক অসিত কুমার সাহা বলেন, পর্যায়ক্রমে সকল উপজেলায় বয়স্ক ভাতা প্রদান করা হবে।

সংযুক্ত থাকুন