মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১
Logo
আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো

কবি মাযহারুল ইসলাম ‘একজন থাকে বাংলায়’ কবিতায় লিখেছেন, ‘খান সাহেবের পরিষদদের/একজন থাকে বাংলায়/শিকারের খোঁজে হয়রান তিনি/মাঠে-ঘাটে লাউ-জাংলায়।

মাতৃভাষা রক্ষায় এভাবে কবিতায় গানে- গল্পে প্রতিবাদ উঠে এসেছে। ঠিক এই কবিতাটিতে যেমন প্রতিবাদ রয়েছে- এ রকম হাজারো কবিতা গানে-গল্পে পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠীকে ধিক্কার দেয়া হয়েছে।


ভাষা সৈনিক আব্দুল মতিন তাঁর এক গ্রন্থে বলেন, বায়ান্ন সালের ২১ ফেব্রুয়ারি তাৎক্ষণিকভাবে ভাষা আন্দোলন সংঘটিত হয়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক ছিলাম আমি। সে জন্য আন্দোলনের ব্যাপারে অনেক দায়িত্ব পালন করতে হয় আমাকে।


বায়ান্ন সালের ২০ ফেব্রুয়ারি ছাত্রদের একটি সভা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ সারাদেশের ছাত্ররা তাতে অংশ নেন। সভায় আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক শামসুল হকও উপস্থিত ছিলেন। সভায় সব ছাত্র বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার জন্য আন্দোলনের পক্ষে মত দেন। শামসুল হক একা এতে দ্বিমত জানান। তিনি বলেছিলেন, ‘সামনে নির্বাচন।


এখন আন্দোলন করলে নির্বাচন নাও হতে পারে।’ সভায় উপস্থিত কোন ছাত্রই তাঁর কথা শোনেননি। ১৯৪৮ সালের ১৯ মার্চ পাকিস্তানের প্রতিষ্ঠাতা মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে এসে বৈষম্যমূলক ঘোষণা দেন।


তিনি বলেন, ‘উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা, অন্য কোন ভাষা নয়।’ জিন্নাহর প্রতি আমার আস্থা ধূলিসাত হয়ে যায়। ওই অনুষ্ঠানে জিন্নাহ সাহেবের বক্তব্যের তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ জানিয়েছিলাম।

সংযুক্ত থাকুন