বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১
Logo
নওয়াপাড়ায় সরকারি খাদ্যগুদামের ভেতর আবাসিক এলাকার বর্জ্য

নওয়াপাড়ায় সরকারি খাদ্যগুদামের ভেতর আবাসিক এলাকার বর্জ্য

নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্যগুদামের পানি নিষ্কাশনের ড্রেনের উপর গড়ে উঠেছে বসতবাড়ি। বন্ধ হয়ে গেছে ড্রেনের মুখ। গুদামের ভিতর ঢুকছে বসতবাড়ির ব্যবহৃত পানি ও বর্জ্য।


নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে খাদ্যশস্য। কর্তৃপক্ষের নোটিশ মানছে না বাড়ির মালিকরা। দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিয়েছে নওয়াপাড়া পৌরসভা।


খাদ্যগুদাম কর্তৃপক্ষ জানায়, নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্য গুদামের পশ্চিম ও উত্তর পাশের প্রাচীর ঘেঁসে ড্রেনের উপর বেশ কয়েকটি বসতবাড়ি মালিক সরকারি নিয়ম নীতি না মেনে অবৈধভাবে ঘর নির্মাণ করেছে।


নির্মাণকালে বাঁধাদান করলেও রাতের আঁধারে নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। যে কারণে তাদের ব্যবহৃত পানি ও বর্জ্য ওই ড্রেন দিয়ে গুদামের ভিতর ঢুকতে শুরু করেছে। গুদামের মধ্যে থাকা খাদ্যশস্য নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে। দূর্গন্ধে বসবাস করা অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়েছে সেবা কার্যক্রম।


বার বার অভয়নগর উপজেলা প্রশাসন ও নওয়াপাড়া পৌর কর্তৃপক্ষকে অবহিত করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়নি। তবে পৌর কর্তৃপক্ষ এবার বিষয়টি আমলে নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সরেজমিনে দেখা যায়, খাদ্যগুদামের পশ্চিম ও উত্তর পাশের কয়েকটি ড্রেনের উপর অবৈধভাবে বসতবাড়ি নির্মাণ করা হয়েছে।


এমনকি গুদামের প্রাচীরকে বসতঘরের দেওয়াল হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে। ড্রেনের মুখ বন্ধ থাকার কারণে ওইসব বসতবাড়ির ব্যবহৃত পানি ও বর্জ্য গুদামের দিকে প্রবাহিত হচ্ছে। ড্রেনের উপর গড়ে তোলা বাড়ির মালিক রণজিতের স্ত্রী জানান, যেভাবে আছে থাকবে, আপনারা কিছু পারলে করেন।


নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন দখলকারী জানান, খাদ্যগুদামের পশ্চিম পাশের ড্রেনটি রেলওয়ের খালের সাথে যুক্ত আছে। সেই খাল দখল করে গড়ে উঠেছে কিছু অবৈধ স্থাপনা। যে কারণে ড্রেনটির মুখ বন্ধ হয়ে গেছে।


এ ব্যাপারে নওয়াপাড়া সরকারি খাদ্যগুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল আদম বলেন, সরকারি প্রাচীর থেকে কমপক্ষে পাঁচ ফুট দূরত্বে বসতবাড়ি নির্মাণ করার নিয়ম আছে। সেই নিয়ম না মেনে ঘরবাড়ি গড়ে উঠেছে। পশ্চিম পাশের ড্রেন বন্ধ করে দেয়ার কারণে পুরো এলাকার পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে গেছে।


আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পৌর কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করা হয়েছে। নওয়াপাড়া পৌরসভার কঞ্জারভেন্সী ইন্সপেক্টর সেলিম মল্লিক জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে সরকারি খাদ্যগুদামের ড্রেন পরিদর্শন করা হয়েছে। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের জানিয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

সংযুক্ত থাকুন