বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১
Logo
যশোরসহ খুলনা বিভাগের ৮ জেলায় ‘ পানি পরীক্ষাগার’ স্থাপনের উদ্যোগ সরকারের

যশোরসহ খুলনা বিভাগের ৮ জেলায় ‘ পানি পরীক্ষাগার’ স্থাপনের উদ্যোগ সরকারের

চলমান রয়েছে ‘নিরাপদ পানি সরবরাহ’ প্রকল্প

সারাদেশের ন্যায় সকলের জন্য বিশুদ্ধ ও নিরাপদ পানির নিশ্চিত কল্পে সরকার যশোর জেলাসহ খুলনা বিভাগের আট জেলায় ‘পানি পরীক্ষাগার স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে। খুলনা বিভাগের ৮টি জেলা হচ্ছে যশোর, সাতক্ষীরা, মেহেরপুর, নড়াইল, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া, মাগুরা, বাগেরহাট।


এছাড়া একই প্রকল্পের আওতায় খুলনা বিভাগের এ আটটি জেলাসহ দেশের ৫২ জেলায় পানির গুণগত মান পরীক্ষায় ‘পানি পরীক্ষাগার’ স্থাপনেরও সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানাগেছে। যার মধ্যে ঢাকা বিভাগের ১১টি জেলা, চট্টগ্রাম বিভাগের ৯টি জেলা, রাজশাহী বিভাগের ৬টি জেলা, খুলনা বিভাগের ৮টি জেলা, ময়মনসিংহ বিভাগের ৩টি জেলা, বরিশাল বিভাগের ৫টি জেলা, সিলেট বিভাগের ৩টি জেলা ও রংপুর বিভাগের ৭টি জেলা রয়েছে। অবশ্য এসব এলাকাগুলোতে ‘ নিরাপদ পানি সরবরাহ’ প্রকল্প চালু রয়েছে।


শতভাগ নিজস্ব অর্থায়নে প্রায় ৯ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে সরকার গ্রামাঞ্চলে ‘নিরাপদ পানি সরবরাহ’ নামে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। গত বছরের জানুয়ারি থেকে ওই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়ে আগামী ২০২৫ সালের মধ্যে তা শেষ হওয়ার কথা রয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে সারাদেশের গ্রামাঞ্চলের মানুষ নিরাপদ পানি পাবে।


ফলে গ্রামাঞ্চলের মানুষের জীবনমান উন্নত হবে। বর্তমানে একটি নলকূপ বা নিরাপদ পানির উৎস ৮৭ জন ব্যবহার করছে। ফলে সবার জন্য নিরাপদ পানি নিশ্চিত হচ্ছে না। তবে প্রতি ৫০ জন একটি নলকূপ ব্যবহার করলে নিরাপদ পানির নিশ্চয়তা তৈরি করা সম্ভব হবে। ওই লক্ষ্য পূরণেই সরকার সারাদেশে নলকূপ বা নিরাপদ পানির উৎস তৈরি করার জন্য ৮ হাজার ৮৫০ কোটি টাকা ব্যয়ের ওই প্রকল্পটি হাতে নিয়েছে। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।


এদিকে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনের জন্য নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্যই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। কারণ দেশের অধিকাংশ এলাকায় বিশুদ্ধ পানির স্বল্পতা রয়েছে। পরীক্ষা করে নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করাও চলমান প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য।


নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের আওতায় ওসব পানি পরীক্ষাগার স্থাপনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সমগ্র দেশে নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। সেজন্যই পানি পরীক্ষাগার নেই তেমন ৫২টি জেলা সদরে ৫২টি নতুন পানি পরীক্ষাগার স্থাপনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।


কারণ পানি পরীক্ষার সুবিধা সৃষ্টির মাধ্যমে জনসাধারণ নিরাপদ পানি সম্পর্কে নিশ্চিত এবং পানিবাহিত নানাবিধ রোগ থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব হবে। তাতে নাগরিক সুবিধা বাড়বে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে সারাদেশে নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিত হবে।

 

সংযুক্ত থাকুন