শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০
Logo
যশোরে স্কুল ছাত্রী অপহরণের দু’দিন পর উদ্ধার : সেল্টার হোমে প্রেরণ

যশোরে স্কুল ছাত্রী অপহরণের দু’দিন পর উদ্ধার : সেল্টার হোমে প্রেরণ

স্কুল পড়ুয়া ছাত্রী অপহরণের দু’দিন পর শুক্রবার ২০ নভেম্বর উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার ২১ নভেম্বর তাকে আদালতে সোপর্দ করে ২২ ধারায় জবানবন্দি নিয়ে সেল্টার হোমে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় কোতয়ালি থানায় মামলা হয়েছে। এদিকে ২৪ ঘন্টা পার হলেও পুলিশ অপহরণ মামলার আসামী রিপন হোসেনকে গ্রেফতার করতে পারেনি। ঘটনাটি যশোর সদর উপজেলার বিরামপুর কালিতলা গ্রামের। ওই গ্রামের মৃত আব্দুল লতিফ মোল্লার ছেলে মফিজ মোল্লা বিরামপুর বাবু পাড়ার বাবর আলীর ছেলে রিপন হোসেনসহ তার সহযোগী অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে শুক্রবার ২০ নভেম্বর কোতয়ালি থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই ইদ্রিসুর রহমান অপহরনকারী এজাহার নামীয় রিপন হোসেনকে গ্রেফতার করতে পারেনি। মফিজ মোল্লা মামলায় উল্লেখ করেন, তার মেয়ে মোছাঃ সাদিয়া খাতুন (১৩) শিলা রায় চৌধুরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ৮ম শ্রেনীতে লেখাপড়া করে। স্কুলে আসা যাওয়ার সময় রিপন হোসেন প্রায়ই তাকে উত্যক্ত করতো। এক পর্যায়ে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। প্রস্তাব প্রত্যাখান করায় ফুসলাতে থাকে। এক পর্যায়ে রিপন সাদিয়া খাতুনের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। বিষয়টি সাদিয়া তার মা বাবাকে জানালে তারা রিপন হোসেন অভিভাবকদের কাছে জানায় তবে তারা কর্নপাত করেনি। এদিকে রিপন হোসেন সাদিয়া খাতুনকে অপহরনের ষড়যন্ত্র করতে থাকে। গত ১৮ নভেম্বর বিকেল ৩ টায় বিরামপুর ফকিরের মোড় কোচিং সেন্টারে পড়া শেষ করে সাদিয়া বাড়ি ফিরছিল। সন্ধ্যা সাড়ে ৫ টায় বাড়ির সামনে পৌছলে ওৎপেতে থাকা রিপনসহ সহযোগী অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন ইজিবাইকে ফুসলিয়ে সাদিয়াকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে বিভিন্ন স্থানে খোঁজা খুজির এক পর্যায়ে শুক্রবার পুলিশ সাদিয়াকে উদ্ধার করলেও রিপন হোসেনকে গ্রেফতার করতে পারেনি। সাদিয়া আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দেওয়ার পর সে বাড়িতে ফিরে যেতে না চাইলে আদালত তাকে আহসানিয়া মিশন সেল্টার হোমে পাঠানোর নির্দেশ দেয়।

সংযুক্ত থাকুন