বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১
Logo
রিক্সা চালিয়ে ঢাকা থেকে সাতক্ষীরা

রিক্সা চালিয়ে ঢাকা থেকে সাতক্ষীরা

করোনাকালে বিশ্ব যখন স্থবির। দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। সাধরণ শ্রমজীবি মানুষ তখন নিরুপায়। কাজ না করলে খাওয়া অনিশ্চত। এমন সময় বাধ্য হয়ে শহর ছেড়ে যেতে হচ্ছে গ্রামে। লকডাউনের বাস্তবতার কাছে হার মেনে শহর ছাড়া এক রিক্সা চালকের নাম লোকমান সরদার।

 

শহরে চলাচল বন্ধ হওয়ায় তিনি ফিরে চলেছেন গ্রামে। লোকমান সরদার দীর্ঘ দিন যাবত ঢাকা শহরে রিক্সা চালান। প্রতিদিনের আয়ে কোন মতে হেঁসে খেলে চলছিল সংসারের চাকা। দ্বিতীয় বারের লকডাউনে আয় বন্ধ হওয়ায় তিনি ঢাকা ছেড়েছেন। ঢাকা থেকে তার গ্রামের বাড়ির দূরত্ব প্রায় ৩০০ কিলোমিটার। তাই নিরুপায় হয়ে অর্থাভাবে বাড়ি যাবেন নিজের পায়ে চালিত রিক্সা চালিয়ে।

 

লোকমান সরদার গত মঙ্গলবার ঢাকা থেকে সাতক্ষীরার কালিগঞ্জের উদ্দেশ্য রওনা করেন। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বাঘারপাড়ার সীমান্তবর্তী খাজুরা এলাকায় পৌছান। একদিন এক রাত পায়ে চালিত রিক্সা চালিয়ে তিনি যশোরের বাঘারপাড়ার খাজুরাতে আসেন। ক্লান্ত শরীরের ৬৫ উর্দ্ধো লোকমান সরদার খাজুরাতে দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের কষ্টের কথা বলছিলেন। কিভাবে এতো পথ পাড়ি দিলেন।

 

এসময় তার কষ্টের কথা মনযোগ দিয়ে শুনছিলেন পুলিশের এডিআইও বাঘারপাড়া জোনের ডিএএসবি জুয়েল কাজী।তার ক্ষুধার্থ মুখ দেখে তাৎক্ষনিক শুকনো খাবারের ব্যবস্থা করেন। খোজ নেন পরিবারের কি হাল। পরবর্তীতে লোকমান সরদারের পরিবারের কিছু দিনের বাজারের ব্যাবস্থা করতে নগদ অর্থ সহায়তা করেন।

 

এ ব্যাপারে জুয়েল কাজী বলেন , মানবিক দিক বিবেচনা করে একজন অসহায় মানুষের দাড়িয়েছি মাত্র। লোকমান চাচা শুকনো খাবার খেয়ে সামান্য বিশ্রাম নিয়ে আবারও যাত্রা করেন সাতক্ষীরার কালীগঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের উদ্দেশ্যে।

সংযুক্ত থাকুন