রবিবার, ১৩ জুন ২০২১
Logo
রোজিনার জামিন না হলে কঠোর কর্মসূচি দেবেন সাংবাদিকরা

রোজিনার জামিন না হলে কঠোর কর্মসূচি দেবেন সাংবাদিকরা


আগামীকাল রোববার যদি রোজিনা ইসলামের জামিন না হয় তবে সব সাংবাদিক সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে। শুক্রবার দুপুরে সাংবাদিক রোজিনাকে নির্যাতন ও গ্রেপ্তারের ঘটনায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) প্রতিবাদী সমাবেশ থেকে এ ঘোষণা দেওয়া হয়। সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় ডিআরইউ প্রাঙ্গণে। সমাবেশে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের কোষাধ্যক্ষ ও নাগরিক টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক আজাদ বলেন, আমি সরকারের সদিচ্ছা নিয়ে প্রশ্ন করতে চাই। বিশেষ করে সরকারের চারজন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রী বলেছেন রোজিনা ইসলাম যেন ন্যায় বিচার পান, তারা তা দেখবেন। কিন্তু আমি তাদের কার্যক্রম নিয়ে সন্দিহান। কেননা জামিন যোগ্য মামলায় একটি মামলা হলো, অথচ তাকে এতটা বেগ পেতে হচ্ছে। আমি দাবি করেছিলাম একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করুন। নতুন একটি তদন্ত কমিটি হয়েছে কিন্তু এটি অত্যন্ত হাস্যকর। কেননা যারা ঘটনা ঘটিয়েছে তাদের নিয়ে তদন্ত কমিটি। আমরা চাই এ কমিটিতে সাংবাদিকরা থাকবে, সরকারের অন্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা থাকবে, একটি স্বাধীন তদন্ত কমিটি হবে। তিনি বলেন, তথ্য আইনে বলা হয়েছে অন্য যেকোনো আইনে যাই থাকুক না কেন এখন থেকে এটি বিধানযোগ্য। অথচ রোজিনার বিরুদ্ধে মামলা হল একটি ব্রিটিশ আমলের আইনে। এটিতো প্রথম দিনই খারিজ হওয়ার কথা ছিল। শাহবাগ থানার কর্মকর্তারা বলেছেন, আমাদের ওপর চাপ আছে, তাহলে কি আইন তার নিজের গতিতে চলছে? ডিআরইউ’র সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বলেন, রোজিনা আপাকে হেনস্তা করা হয়েছে। এজন্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিরুদ্ধে মামলা করা উচিত। যদি পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা করা না হয়, তবে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির পক্ষ থেকে মামলা করা হবে। ডিআরইউ’র সহ-সভাপতি ওসমান গণি বাবুলের সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও উপস্থিত ছিলেন- সহ-সভাপতি আজমল হক হেলাল, নারী সম্পাদক রীতা রাহাত, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাইদুর রহমান রুবেল, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম, কারা বরণ করা বিশিষ্ট সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজল, সিনিয়র সাংবাদিক আশীষ কুমার দে প্রমুখ। বক্তারা বলেন, এ সমস্যার সমাধান না হলে আমরা স্বেচ্ছায় কারাবরণ করতে চাই। জনগণের তথ্য জনগণকে দিয়ে যদি আমরা অপরাধ করি, তবে আমরা এ অপরাধ করে যাব। আমরা বুঝে গেছি এ ন্যায় বিচারটি সহজতর হবে না। কেননা যারা বিচার করছেন তারাই দুর্নীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও আমলারা সুপরিকল্পিতভাবে রোজিনা ইসলামকে কারাগারে পাঠিয়েছে। আমরা এ আন্দোলন চালিয়ে যাব। আমরা চাই তথ্যমন্ত্রীর নিজ উদ্যোগে রোজিনা ইসলামকে ছাড়িয়ে আনা হোক। তাকে সব প্রকার মিথ্যা মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হোক। সাংবাদিক সুরক্ষা আইন দ্রুত বাস্তবায়ন হোক, সংবাদকর্মীদের কর্মক্ষেত্র সুরক্ষিত থাকুক। তারা বলেন, জব্দ তালিকায় যেসব জিনিস দেখানো হয়েছে সেগুলো জব্দ করেছেন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা। অথচ এ কাজ পুলিশের। এ থেকেই বোঝা যায় যে কর্মকর্তারা তাদের ডেস্ক থেকে এসব কাগজ এনে রোজিনা ইসলামকে ফাঁসিয়েছেন। ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির এ প্রতিবাদ সমাবেশের সঙ্গে সাংবাদিকদের অন্যান্য সংগঠনও এ সময় একাত্মতা প্রকাশ করেন।

সংযুক্ত থাকুন