বুধবার, ২১ এপ্রিল ২০২১
Logo
শ্যামনগরে বেড়ীবাঁধ রক্ষায় স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছে হাজার হাজার মানুষ

শ্যামনগরে বেড়ীবাঁধ রক্ষায় স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছে হাজার হাজার মানুষ

শ্যামনগরে বুড়িগোয়ালিনী ইউনিয়নের পশ্চিম দূর্গাবাটিতে জোয়ারে আনুমানিক ২০০ ফুট বেড়ীবাঁধ ভেঙ্গে গিয়ে নদীর প্রবল স্রোত লোকালয়ে প্রবেশ করে। অত্র ইউনিয়নের ৬টি গ্রামসহ বিস্তৃর্ন এলাকা প্লাবিত হয়।


এতে শত শত মৎস্য ঘের, কাঁকড়ার হ্যাচারী পানিতে ভেসে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া গবাদি পশু, হাঁস-মুরগীসহ বিভিন্ন প্রাণী মারা গেছে।


শুক্রবার ২এপ্রিল স্থানীয় চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল ও জেলা পরিষদের সদস্য ডালিম কুমার ঘরামীর তত্ত্ববধানে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষ, ষ্টুডেন্ট সলিডারিটি টিম ও সিডিও ইয়থ টিমের সদ্যসরা বাঁধ রক্ষায় কাজ করছে। গতকাল শ্যামনগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এস এম আতাউল হক দোলন, শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আ ন ম আবুজর গিফারী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ উজ জামান সাইদ, শ্যামনগর প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শাহিনুল ইসলাম, ভাঙ্গনকৃত এলাকা আবারও পরিদর্শন করেছে।


উল্লেখ্য, গত ৩০ মার্চ নদীতে স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ২ ফুট পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার পশ্চিম দূর্গাবাটি সাইক্লোন সেল্টারের সামনে আনুমানিক ৫০ ফুট বেড়ীবাঁধ ভেঙ্গে গিয়ে নদীর পানি লোকালয়ে প্রবেশ করে। এ সময় বুড়িগোয়ালিনী ইউপি চেয়ারম্যান ভবতোষ কুমার মন্ডল ও জেলা পরিষদের সদস্য বাবু ডালিম কুমার ঘরামী, পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহযোগিতায় আনুমানিক ২শত শ্রমিক নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে বাঁধটি বাধতে সক্ষম হয়। বুধবার দিনগত রাতে অস্বাভাবিক জোয়ারে ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধটি ভেঙ্গে গিয়ে নদীর পানি লোকালয়ে প্রবেশ করে।


অত্র ইউনিয়নের পশ্চিম দূর্গাবাটীর, পূর্ব দূর্গাবাটীর, ভামিয়া, মাদিয়া, পোড়াকাটলা ও আড়পাঙ্গাশিয়া ৬টি গ্রাম সহ বিস্তৃর্ন এলাকা প্লাবিত হয়। এতে শত শত মৎস্যঘের, কাঁকড়ার হ্যাচারী সহ জানমালের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ড শ্যামনগর শাখার উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী রাশেদুর রহমান জানান, এলাকার লোকজন স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে কাজ করলে শনিবার বাঁধ বাধা সম্ভব হবে।

সংযুক্ত থাকুন