রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১
Logo
সংঘাত-সংঘর্ষে সাধারণ সিরীয়দের মানবেতর জীবন

সংঘাত-সংঘর্ষে সাধারণ সিরীয়দের মানবেতর জীবন

১০ বছর আগে সিরিয়ায় গৃহযুদ্ধের যে আগুন জ¦লে উঠেছিলো, তা এত বছরেও নেভেনি। দিনের পর দিন আলোচনা আর সংলাপ কোন মতেই পারেনি বিবাদমান পক্ষগুলোকে ঐকমত্যে আনতে।


বিশ্ব পরাশক্তিগুলোর ভূ-রাজনৈতিক খেলায় মানবেতর জীবন যাপন করছে সাধারণ মানুষ। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সিরীয় শিশুরা। উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় আলেপ্পোর আর দশটা শিশুর মতই একজন আবু রাদান। তবে পার্থক্যটা অন্যখানে।


আসাদ বিরোধী আন্দোলনের সময় জন্ম নেয়া ১০ বছরের আবু রাদান পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তিন বোন আর বাবা, মাকে নিয়ে শরণার্থী শিবিরের একটা তাবুতেই বসবাস করতে হয় তাকে। যে বয়সটা হেসে খেলে বেড়ানোর কথা, সিরীয় গৃহযুদ্ধ সেই বয়সেই তাকে ঠেলে দিয়েছে জীবন সংগ্রামে।


দিনের আলো ফুটতেই, তীব্র শীতের মধ্যেই রাদানকে ছুটতে হয় কারখানার দিকে। কোন কোন দিন শীতের সঙ্গে যুক্ত হয় বৃষ্টি কিংবা তুষারপাত। তুর্কি বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় প্রতিদিন হাড়ভাঙা খাটুনি শেষে মজুরি জোটে মাত্র ১৩ ডলার।


ইউনিসেফের তথ্যমতে, যুদ্ধ আর সংঘাতে প্রায় ২৫ লাখ সিরীয় শিশু স্কুল ছাড়তে বাধ্য হয়েছে। অনিশ্চিত জীবনে স্কুলে যাওয়ার স্বপ্ন তাই অনেকটাই ফিকে আবু রাদানের কাছে।

সংযুক্ত থাকুন